• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৭:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন এর ৭৭তম জন্মদিন উদযাপন করলো ” জাতীয় নারী সাহিত্য পরিষদ” যুব জমিয়ত বাংলাদেশ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার ৪১ বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন পাবনায় জামায়াতের সেলাই মেশিন বিতরণ নড়াইলে মোটরসাইকেল-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে স্কুলছাত্র নিহত ঈদুল আযহা উপলক্ষে রায়পুরাতে ভিজিএফ’র চাল বিতরণ…. শিক্ষা কর্মকাণ্ডে প্রশংসিত,রাজশাহী অঞ্চলের উপপরিচালক মাউসির (ডিডি)ডাঃশরমিন ফেরদৌস চৌধুরী। র‍্যাবের অভিযানে রাজশাহীর চারঘাট হতে ৩২০ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ’ ০১ জন মাদক কারবারি গ্রেফতার চট্টগ্রামে প্রগতি লাইফ ইন্স্যরেন্স কোম্পানির মৃত্যুদাবির চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠান সম্পন্ন ———————- সীতাকুণ্ডে মহাসড়কে প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহীর যুবকের নড়াইলে ইজিবাইক কিনে দেওয়ার প্রলোভনে অপহরনের পর হত্যা, ৩ জনের ফাঁসির আদেশ

জুয়েলারি ব্যবসার আড়ালে চলছে অবৈধ সুদের কারবার

Muntu Rahman / ২০৯ Time View
Update : শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

জুয়েলারি ব্যবসার আড়ালে চলছে অবৈধ সুদের কারবার

নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি:

নওগাঁর মহাদেবপুরে জুয়েলারি ব্যবসার আড়ালে চলছে জমজমাট অবৈধ সুদের কারবার। কোন রকম নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে ইচ্ছেমত সুদের হার নির্ধারন করে নেয়া হচ্ছে সুদ। সুদের টাকা মাত্র তিন মাস দিতে না পারলে বাজেয়াপ্ত করা হয় লাখ লাখ টাকার বন্ধকী সোনা। এতে গ্রামের অসংখ্য কুলবধূ নি:স্ব হয়েছেন। দ্বারে দ্বারে ধর্না দিয়েও তারা কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না। দিনের পর দিন, বছরের পর বছর ধরে এই অবৈধ কারবার চলে আসলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন বিষয়টি নিয়ে কখনো কোন ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেয়নি। ভূক্তভোগীরা এই অবৈধ সুদের ব্যবসায় বন্ধের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার ও তাদের বাজেয়াপ্ত করা গহনা ফেরতের দাবি জানান।
উপজেলার কয়েকজন গৃহবধূ অভিযোগ করেন যে, তারা জরুরী প্রয়োজনের সময় জুয়েলারি দোকানে নিজেদের স্বর্ণালংকার বন্ধক রেখে কিছু টাকা ধার নেন। এরজন্য প্রতি হাজারে প্রতি মাসে ৬০ টাকা করে সুদ দিতে হয়। কিন্তু নানা কারণে অনেকেই সুদের টাকাও যোগাড় করতে পারেন না। এভাবে তিন মাস সুদ না দিলে তাদের লক্ষ লক্ষ টাকা মূল্যের গহনা আর ফেরৎ দেয়া হয়না। এটা নিয়ে তারা বিভিন্ন জনের সহযোগিতা চেয়েও কোন প্রতিকার করতে পারেননি।
উপজেলার খাজুর ইউনিয়নের মধুবন গ্রামের জান্নাতুল ফেরদৌস লতা জানান, তিনি উপজেলা সদরের সোনারপট্টি এলাকার কোহিনুর জুয়েলার্সে দুই ভরি সাড়ে তের আনা ওজনের স্বর্ণালংকার বন্ধক রেখে ৬০ হাজার টাকা নেন। এজন্য মাসে তিন হাজার ৬০০ টাকা সুদ দেন। পরে সুদের টাকা দিতে না পারায় দোকান মালিক সে সোনা আর ফেরৎ দেননি। তার বন্ধক রাখা সোনার দামের চার ভাগের একভাগ টাকা ঋণ নিয়েছেন তিনি। কিন্তু এখন সুদের টাকা দিতে না পারায় পুরো সোনা নিয়ে নিচ্ছে। বন্ধক রাখা জুয়েলার্সের মালিক বলেছেন নিয়মানুযায়ী বন্ধকের মেয়াদ পার হওয়ায় বন্ধক রাখা সোনা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। দামি সোনাগুলো ফেরৎ পাবার জন্য তিনি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনের মাধ্যমে দেন দরবার করেছেন। কিন্তু তাকে তার সোনা ফেরৎ দেয়া হয়নি। হাসিনা খাতুন নামে আর এক গৃহবধূ অভিযোগ করেছেন যে, তিনি আরাফাত জুয়েলার্সে তার সোনার গহনা বন্ধক রাখেন। কিন্তু দোকান মালিক সিরাজুল ইসলাম সে গহনা ফেরৎ না দেয়ার উদ্দেশ্যে সে ভেঙ্গে ফেলেন।
জানতে চাইলে কোহিনুর জুয়েলার্সের মালিক এবং উপজেলা জুয়েলারি মালিক সমিতির সভাপতি আতিকুর রহমান আতিক জানান, জান্নাতুল ফেরদৌস লতার বিষয়টি পাঁচ বছর আগেকার। কিন্তু তার ঋণের মেয়াদ ছিল মাত্র তিন মাস। মাসে পাঁচ শতাংশ হারে সুদ নেয়া হয়। এতে এখন তার শুধু সুদের পরিমাণ দাঁড়ায় এক লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। আর আসল ৬০ হাজার টাকা। মোট পাওনা দুই লক্ষ ৪০ হাজার টাকা। আর তার বন্ধক রাখা সোনার মোট দাম এখন এক লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। তার সোনার দামের চেয়ে পাওনা অনেক বেশি। তাই ফেরৎ দেয়া হয়নি। সুদাসলের মোট টাকা পরিশোধ করলে তবেই তার সোনা ফেরৎ পাবেন। আতিক জানান, স্মরণাতীত কাল থেকে এই সুদের কারবার চলে আসছে। সোনার দোকান মানেই এরকম সুদের ব্যবসায়। তার সমিতির একশ’ জন সদস্য রয়েছে এবং এদের অনেকেই এই সুদের ব্যবসায় করেন। এজন্য তারা নিয়মানুযায়ী সমবায় দপ্তর থেকে কোন লাইসেন্স নেননি বলেও জানান তিনি। বিষয়টি বেআইনী জেনেও বছরের পর বছর ধরে তারা এই ব্যবসায় করে আসছেন। আরাফাত জুয়েলার্সের মালিক সিরাজুল ইসলামের মোবাইলফোনে কল দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।
মাসে পাঁচ শতাংশ মানে বছরে ৬০ শতাংশ। এত বেশি সুদ কোন বৈধ প্রতিষ্ঠানও নিতে পারেনা বলে জানান বয়জ্যেষ্ঠরা। এই অবৈধ চড়া সুদের ব্যবসায় করে একশ্রেণির স্বর্ণ ব্যবসায়ী আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। অবৈধ টাকার পাহাড় গড়ে তুলে তারা প্রচলিত আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ধরাকে সরা জ্ঞান করছে। এদের যে কোন মূল্যে প্রতিহত করা প্রয়োজন বলেও জানান তারা।
জানতে চাইলে মহাদেবপুরে সদ্য যোগদান করা উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল হাসান সোহাগ জানান, জুয়েলারি দোকানে স্বর্ণ বন্ধক রেখে সুদ নেয়া সম্পূর্ণ বেআইনী। তার উপর পুরো স্বর্ণ বাজেয়াপ্ত করা আরো অন্যায়। অভিযোগ পেলে এবিষয়ে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিবেন বলেও জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Devoloped By WOOHOSTBD